ব্যাংক জব নিয়োগ পরীক্ষায় ব্যর্থ হওয়ার একটি সাইকোলজিক্যাল কারণ

Published Date: Sunday, February 2, 2020

ব্যাংক জব নিয়োগ পরীক্ষায় ক্ষেত্রে সায়েন্টিস্টগণ বলেন কোন অর্জনের পিছনে পরিশ্রমের থেকে সাইকোলজিক্যাল প্রিপারেশনের গুরুত্ব অনেক বেশী (পরে এটার উপরে ডিটেইলড একটা পোস্ট দেবো)৷ এই সাইকোলজিক্যাল প্রিপারেশনের মধ্যে অনেক কিছুই আছে মাইন্ডসেট করা, ধৈর্য্য, কনফিডেন্স ডেভেলপ করা আরও অনেক কিছু।

আবার বর্তমান সময়ের নিউরোসায়েন্স বলে ইনপুটের থেকে আউটপুটের প্রতি বেশী নজর দিলে রেজাল্টটা ভালো হয়; তবে সেটা অবশ্যই যথাযথভাবে ইনপুট নিশ্চিত করার পরেই। নিয়োগ পরীক্ষাগুলোর ক্ষেত্রে ইনপুট হচ্ছে আপনার প্রিপারেশন (সাইকোলজিক্যাল প্রিপারেশনসহ), আর আউটপুট পরীক্ষায় আপনার পারফরম্যান্স।

আরো পড়ুন: মাত্র ২০ মিনিটে মুখস্ত করুন বিশ্বের সব দেশের মুদ্রার নাম

আরো পড়ুন: বিসিএস প্রিলি পাশের টুকিটাকি

আমি খেয়াল করে দেখলাম, যারা ব্যাংক জবের পরীক্ষা দেন তাদের প্রায় সবারই ইনপুট টা নিয়ে সমস্যা আছে বেশ। আপনাদের প্রায় সবারই প্রিপারেশন কমপ্লিট হয়না পুরোপুরি। আপনারা জাস্ট পরীক্ষাগুলোর দিকেই মনোযোগ দেন বেশী, প্রিপারেশনের দিকে না। ধরে নিলাম একটা প্রিপারেশন সম্পূর্ণ করতে ৬ মাস থেকে এক বছর সময় লাগে। যাদের বেসিক আগে থেকেই বেশ ডেভেলপড তাদের ক্ষেত্রে হয়তো ২-৩ মাসেই সম্ভব; কিন্তু এ সংখ্যাটা খুবই কম এবং তাদেরকে আমি সাধারণের ঘরে ফেলতে চাচ্ছিনা।

সাধারণ স্টুডেন্টদের ভুলটা হচ্ছে আপনারা একটু ধৈর্য্য ধরে এই ৬ মাস বা এক বছর সময়ে শুধুই প্রিপারেশনের দিকে ফোকাস করতে রাজী না। ২-১ মাস প্রিপারেশন নেওয়া হলেই আপনারা মনে করছেন আপনারা রেডি। এর মধ্যে যখনই কোন পরীক্ষা পড়ে যাচ্ছে সেটাতেই অ্যাটেন্ড করছেন আপনারা। এবং পরীক্ষার আগে গড়ে কমপক্ষে ২ সপ্তাহ করে আপনারা ওই পরীক্ষায় কিভাবে ভালো করা যাবে সেদিকেই ফোকাস করছেন; ওভারঅল প্রিপারেশনের টার্গেট থেকে সরে গিয়ে। দেখা যাচ্ছে, প্রিপারেশন নেওয়া শুরুতে ২-১ মাসের মধ্যে যে টপিকগুলো শেষ করেছিলেন তার বেশী আর আগাতে পারছেন না। যদি ধরা যায় আপনার প্রিপারেশন নিতে হবে এক থেকে দশ পর্যন্ত আপনি হয়তো তিন পর্যন্ত শেষ করতে পারছেন। এরপরেই চলে আসছে কোন পরীক্ষা এবং আপনি চার থেকে দশ পর্যন্ত শেখা বাদ দিয়েই ওই পরীক্ষার জন্য ঝাঁপিয়ে পড়ছেন। আলটিমেটলি ওই চার থেকে দশ পর্যন্ত আপনার আর ভালোভাবে শেখা হচ্ছেনা কখনোই। আনফরচুনেটলি পরীক্ষাগুলোও ইদানীং এতো ফ্রিকুয়েন্টলি হয় যে শুধু পরীক্ষার দিকে ফোকাস করেই আপনাদের বছরের পর পর বছর কেটে যাচ্ছে। ওভারঅল প্রিপারেশন সম্পূর্ণ করার লক্ষ্য থেকে অনেক দূরে সরে যাচ্ছেন আপনারা। এবং পরীক্ষা দিতে দিতেই বয়স শেষ হয়ে যাচ্ছে অনেকের! এক্ষেত্রে পরীক্ষাগুলো হয়ে দাঁড়াচ্ছে প্রিপারেশনের পথে স্পয়লার!

এজন্যই আপনাদের প্রতি ছোট্ট একটি পরামর্শ…আগে প্রিপারেশন সম্পূর্ণ করুন। ছয় মাস থেকে এক বছর টার্গেট করে শুধুই ইনপুট দিতে হবে; সাইকোলজিক্যাল ইনপুট এবংঅ্যাকশন দুটোই। তাহলে কি এর মধ্যে কোন পরীক্ষা এসে পড়লে সেটাতে অ্যাটেন্ড করবেন না? অবশ্যই অ্যাটেন্ড করবেন। কিন্তু সমস্ত শক্তি সেটাতে দিয়ে না। এ সময়ে পরীক্ষায় অ্যাটেন্ড করবেন অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করতে; পুরোপুরি প্রস্তুত হওয়ার পরে যখন পূর্ণ শক্তি নিয়ে পরীক্ষা দিতে যাবেন তখন পরীক্ষার হলে আপনার স্ট্র‍্যাটেজি কি হবে সেটা ঠিক করতে। এ পরীক্ষায় আপনাকে টিকতেই হবে এরকম টেনশন মাথায় নিয়ে না; বরং পরীক্ষায় অ্যাটেন্ড করার আগের দিনে যে দশটা ভোকাব্যুলারি মুখস্থ করেছিলেন মাথার মধ্যে সেটা আওড়াতে আওড়াতে, অথবা বাসায় একটা অংক করতে করতে আটকে গিয়ে রেখে এসেছিলেন…বাসায় পৌঁছে সেটা কিভাবে সলভ করবেন সে চিন্তা করতে করতে!

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Popular posts:

google ad

Calender

July 2021
MTWTFSS
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
262728293031