ক্যারিয়ার গঠনের ক্ষেত্রে নেটওয়ার্কিং এর গুরুত্ব

Published Date: Tuesday, January 14, 2020

নেটওয়ার্ক একটি ইংরেজি শব্দ। যার বাংলা অর্থ দাঁড়ায় সংযুক্ত থাকা। অর্থাৎ নেটওয়ার্ক বলতে বুঝায় এক জন অন্যজনের সাথে সংযুক্ত থেকে বিশাল যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে তোলা। যে কোনো ধরণের চাকরি ,ক্যারিয়ার ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে নেটওয়ার্ক খুবই গুরুত্বপূর্ণ জিনিস। নেটওয়ার্কিং ভালো থাকলে শুধুমাত্র চাকরি নয় এটি সহায়তা করবে আপনার জীবনের যে কোনো ক্ষেত্রে। আপনি বর্তমানে যেখানে থাকুন না কেন কলেজ ,বিশ্ববিদ্যালয় অথবা যে কোনো প্রতিষ্ঠানে ভালো নেটওয়ার্কিং থাকলে তা আপনার জন্য অনেক বেশি ভালো হবে। ধরুন আপনি বর্তমানে যেই প্রতিষ্ঠানে কর্মরত রয়েছেন যেই পদে আপনি বহাল আছেন না কেন প্রতিষ্ঠানের সকলের সাথে সকল পদের মানুষের সাথে একটি সুন্দর সম্পর্ক গড়ে তুলুন। বিশ্বাস করুন আর নাই করুন ভালো নেটওয়ার্কিং থাকলে তা আপনাকে সহযোগিতা করবে জীবনের যে কোনো ক্ষেত্রে যে কোনো পর্যায়ে।

নেটওয়ার্ক শুধু যে প্রফেশনাল ব্যক্তিদের সাথে করতে হবে তা কিন্তু নয়। নেটওয়ার্কিং হতে পারে একাডেমিক ,পারিবারিক ,ব্যক্তিগত যে কোনো পর্যায়ের মানুষের সাথে। নেটওয়ার্কিং করা যেমন সহজ ঠিক তেমনি নেটওয়ার্কিং রক্ষা করা খুবই কঠিন কাজ। কারণ নেটওয়ার্কিং এর মাধ্যমে বিভিন্ন ব্যক্তিদের সাথে তাদের কর্মস্থল,তাদের ক্যারিয়ার সকল কিছু নিয়ে আলোচনা করতে হবে। হয়ত কিছু কিছু পেশা এমনও থাকবে যে পেশায় হয়তো আপনি কোনোদিন যুক্ত হবেন না। কিন্তু তবুও সেই সকল পেশার মানুষের সাথে আপনি আপনার নেটওয়ার্কিং বজায় রাখুন। ভালো নেটওয়ার্কিং বজায় থাকলে সেই সকল ব্যক্তিদের সাথে বা তাদের পরিচিত ব্যক্তিদের থেকে আপনি যেমন দিকনির্দেশনা পাবেন। তেমনি তা আপনার যে কোনো ক্ষেত্রে উপকারে আসতে পারে।

আজকের সাধারণ জ্ঞান

ভালো নেটওয়ার্কিং গঠনের কৌশল : ভালো নেটওয়ার্কিং গড়ে তুলতে হলে আপনাকে কিছু বিষয় অবশ্যই মাথায় রাখতে হবে।

১) উপযুক্ত মানুষের সাথে যোগাযোগ বজায় রাখা : মানুষ যেমন একা বাঁচতে পারেনা ,তেমনি আপনার নিজের উজ্জ্বল ক্যারিয়ারের জন্য ভালো কিছু একা করে সফলতা অর্জন করা সম্ভব নয়। উপযুক্ত পরিশ্রম সাফল্যের চাবিকাঠি ঠিকই কিন্তু সেই সাথে প্রয়োজন সকলের সাথে ভালো নেটওয়ার্কিং বজায় রাখা। সফল ক্যারিয়ার গঠন করতে হলে আপনাকে সফল বা উপযুক্ত কিছু মানুষের সাথে নেটওয়ার্কিং গড়ে তুলতে হবে যারা কোনো না কোনো ধরণের প্রতিষ্ঠানের সাথে যুক্ত ,কোনো না কোনো প্রতিষ্ঠানে কর্মরত। উপযুক্ত মানুষজন যে কেউ হতে পারে। আপনার পরিচিত বর্তমনে পূর্বের কে কেউ পারিবারিক ব্যবসায়িক সকল ধরণের ক্যারিয়ার ওরিয়েন্টেড সাথে আপনি আপনার নেটওয়ার্কিং বজায় রাখুন।

২) কিভাবে নেটওয়ার্কিং আপনার সাফল্যের চাবিকাঠি হবে : যে সকল মানুষ নেটওয়ার্কিং এর মাধ্যমে জীবনে সফলতা অর্জন করেছেন তারা এর গুরুত্ব সম্পর্কে জেনে থাকবেন। চাকরি ,লেখাপড়া,খেলাধুলা সকল কিছুর জন্য টিমওয়ার্ক বা নেটওয়ার্কিং খুবই প্রয়োজন। আপনার পরিচিত ব্যক্তিদের সাথে নেটওয়ার্কিং করে আপনি যেমন তাদের প্রতিষ্ঠানের খবরাদি জেনে থাকবেন ,ঠিক তেমনি আপনি আপনার যোগ্য পদ সম্পর্কেও অবহিত হতে পারবেন। একটি সঠিক নেটওয়ার্কিং যে কোনো প্রতিষ্ঠানে সিভি জমা দেবার থেকেও সহায়ক ভূমিকা পালন করে।

৩) সবসময় নেটওয়ার্কিং বজায় রাখুন :আপনি যে শুধুমাত্র আপনার প্রয়োজনে নেটওয়ার্কিং গড়ে তুলবেন তা কিন্তু নয়। বরং নেটওয়ার্কিং বজায় রাখতে হবে সবসময়। সবার খোঁজখবর নেবার চেষ্টা করুন। আজকাল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কারো খোঁজ খবর নেওয়া তেমন কোনো কঠিন কাজ নয়। আপনি যদি সকলের খোঁজ খবর নিন ,সকলের বিপদে আপদে সাহায্য সহযোগিতাপূর্ণ মনোভাব পোষণ করে থাকেন তাহলে আপনার বিপদে আপদে কাউকে না কাউকে অবশ্যই পাবেন। নেটওয়ার্কিং এর সবচেয়ে বোরো সুবিধা এটাই। ৪.দ্বিপাক্ষিক মনোভাব পোষণ করা : নেটওয়ার্কিং কখনো একপাক্ষিক হতে পারেনা। নেটওয়ার্ক মানেই কমিউনিটি গড়ে তোলা। নেটওয়ার্কিং হতে পারে দ্বিপাক্ষিক। আপনি শুদু করেই যাবেন অন্যজন শুধু সুবিধা ভোগ করে যাবে তা কিন্তু কখনোই নেটওয়ার্কিং এর আওতায় পড়বেনা। আপনি জীবনে যাই কিছু করেন না কেন সবসময় তা নিয়ে সকলের সাথে আলোচনা করবেন। এতে আপনার ভুলত্রূটিগুলো যেমন কেউ ধরিয়ে দিবে ,তেমনি রয়েছে নতুন নতুন আইডিয়া পাবার সম্ভাবনা। এতে করে আপনি যেমন সকলের উপকার করবেন তেমনি কেউ না কেউ আপনার উপকারে আসতে পারে।

৫) সকলের খোঁজখবর রাখা: আপনি আপনার নেটওয়ার্কিং এর আওতায় সকল মানুষের খোঁজখবর রাখুন। কে কোথায় যুক্ত আছে ,কোনো ধরণের প্রতিষ্ঠানে যুক্ত আছে, কোথায় কি ধরণের কাজ করছে তা ভালো করে জেনে নিবেন। এসব তথ্যাদি আপনার মাথায় থাকলে পরবর্তীতে আপনার তার সাথে কথা বলতে সুবিধা হবে।

৬) সামাজিক যোগাযোগ নেটওয়ার্কিং: আজকাল নেটওয়ার্কিং এর ক্ষেত্রে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। ফেইসবুক, লিংকডইন এর মাধ্যমে আপনি আপনার নেটওয়ার্কিং গড়ে তুলতে পারবেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে নেটওয়ার্কিং প্লাটফর্ম খুবই উন্নত ও প্রসারিত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Recent Posts

Popular posts:

google ad

Calender

July 2020
M T W T F S S
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728293031