প্রাচীন শহর পানাম নগর থেকে ঘুরে আসুন

Published Date: Thursday, January 9, 2020

ঐতিহাসিক পানাম নগর। যারা ঢাকায় বাস করেন এবং চাকরিজীবী তাদের বাইরে বেড়ানোই হয় না। আর এর বড় কারণ সময়ের অভাব। সপ্তাহে একদিন অথবা দু’দিন ছুটি। এই অল্প ছুটিতে ঢাকার বাইরে ঘুরে আসা ভাবাই যায় না। কিন্তু চাইলেই এই ইট, কাঠ আর ধূলাবালুর শহর ছেড়ে স্বাধীনভাবে ঘুরে আসতে পারেন খুব কাছ থেকেই।

অনেক দিন ধরে ঐতিহাসিক এই নগরীতে বেড়িয়ে আসার ইচ্ছা। কিন্তু সময় হয়ে ওঠেনি। তাই এবার ঠিক করলাম পানাম নগর দেখবই। ঢাকা থেকে পানাম নগরীর দূরত্ব মাত্র ২৭ কি.মি। গুলিস্তান থেকে আপনি বাস পেয়ে যাবেন। ভাড়া জনপ্রতি ৫০-৬০ টাকা। সময় লাগবে ৩০-৪০ মিনিট। সোনারগাঁয়ের মোগড়াপাড়া নেমে সেখান থেকে রিকসা/অটোরিকসা দিয়ে সোনারগাঁ পানাম চলে যান।

পানাম নগরীর প্রবেশ মূল্য মাত্র ১৫ টাকা। প্রবেশ মুখেই রয়েছে একটি ফলক। চাইলে এর ইতিহাস এখান থেকে আপনি জেনে নিতে পারেন। পানাম নগরের নির্মিত ভবনগুলো ছোট লাল ইট দিয়ে তৈরি। মোট ৫২টি দৃষ্টিনন্দন ভবন আছে। ছুটির দিনে প্রচুর মানুষ আসে। মৃত কোলাহল আর অব্যক্ত ইতিহাস যেন জড়িয়ে আছে এ নগরীর প্রতিটি ইটে। পথের দু’ধারে কালের সাক্ষী হয়ে দাড়িয়ে থাকা ধ্বংসপ্রাপ্ত ভবন আর কাঠামোগুলো যেন হারানো জৌলুসের কথা জানান দিচ্ছে। প্রায় ৪৫০ বছর আগে এ নগরী কতটা সমৃদ্ধ ছিলো তা বারবার ভাবতে বাধ্য করে রাস্তার দু’পাশের দু’তল-ত্রিতল ভবনগুলো। পানাম নগরের পথে হাঁটতে হাঁটতে মনে হতেই পারে ঈশা খাঁর আমলে চলে গেছেন।

আপনার ব্যক্তিগত ক্যামেরা/মোবাইল ফোন নিতে ভুলবেন না কারণ সেখানে ছবি তোলার জন্য আলাদা করে তেমন ভালো কোন ব্যবস্থা নেই। নিজের ছবি নিজেই তুলতে ব্যবস্থা রাখুন। তা না হলে পরে হতাশ হতে হবে।

সোনারগাঁয়ে হাস্যকর পিরামিড নাকি ভিন্ন কিছু!

কেমন যেন একটা রহস্য জড়িয়ে আছে জায়গাটিতে। প্রতিটি ধ্বংসস্তুপে যেন জড়িয়ে আছে একেকটা কাহিনী। যদিও ধ্বংসস্তুপ বলছি তবুও এর আকর্ষণের নেই কমতি। ভবনগুলোর নির্মাণশৈলী দেখে মুগ্ধ না হয়ে পারা যায় না। এটি ‘হারানো নগরী’নামে পরিচিত। ঢাকা থেকে অদূরে অবস্থিত প্রাচীন এই শহরে ঘুরে আসুন না একবার। এই নগরীতে প্রবেশ করলে আপনি হারিয়ে যাবেন অন্য ভুবনে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Popular posts:

google ad

Calender

May 2021
MTWTFSS
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
24252627282930
31